Saturday, 24 June 2017


রাঙামাটি যাওয়ার পথে ফখরুলদের গাড়িবহরে হামলা

ঢাকা,১৮জুন,ফোকাস বাংলা নিউজ: রাঙামাটিতে পাহাড়ধসে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে যাওয়ার পথে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়িবহরে হামলা হয়েছে। হামলায় মির্জা ফখরুলসহ দলটির কয়েকজন নেতা আহত হয়েছেন। হামলার পর তাঁরা রাঙামাটি না গিয়ে চট্টগ্রাম শহরে ফিরেছেন। হামলার নিন্দা জানিয়ে প্রতিবাদ কর্মসূচি দিয়েছে বিএনপি।রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলা সদরের ইছাখালী এলাকায় চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কে এই হামলা হয় বলে জানান মির্জা ফখরুল।দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।তিনি বলেন, রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ইছাখালী এলাকায় এই হামলায় মির্জা ফখরুল ও তিনি নিজে আঘাত পেয়েছেন। গাড়ি বহরে থাকা আমির খসরুবলেন, মহাসচিবের নেতৃত্বে তাদের সাত সদস্যের প্রতিনিধি দল সকালে চট্টগ্রাম থেকে সড়ক পথে কাপ্তাইয়ের পথে রওনা হন। সেখান থেকে নৌপথে তাদের রাঙামাটি যাওয়ার কথা ছিল।সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাঙ্গুনিয়ার ইছাখালী এলাকায় পৌঁছালে একদল লোক রড ও দা নিয়ে আমাদের গাড়ি বহরে হামলা চালায়। তারা বৃষ্টির মতো পাথর মারছিল। আমাদের গাড়ি চুরমার করে ফেলেছে।গাড়ির কাচ ভেঙে শরীরে লেগে আহত হয়েছেন জানিয়ে আমির খসরু বলেন, আওয়ামী লীগের হাছান মাহমুদের লোকজন এই হামলা চালিয়েছে বলে আমাদের ধারণা।হামলার পর রাঙামাটি যেতে না পেরে বিএনপি প্রতিনিধি দলের সদস্যরা চট্টগ্রামের দিকে রওনা হন। দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে তাদের সংবাদ সম্মেলন করার কথা রয়েছে।বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল রুহুল আলম চৌধুরী ও সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম এই প্রতিনিধি দলে রয়েছেন।অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় এমপি হাছান মাহমুদ বলেন, মির্জা ফখরুল রাঙামাটি যাওয়ার পথে ইছাখালী এলাকায় তাদের গাড়ির ধাক্কায় স্থানীয় দুইজন আহত হয়। এতে বাসিন্দারা ক্ষুব্ধ হয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তবে এ ঘটনা অনভিপ্রেত।আহত দুই স্থানীয় বাসিন্দা রাঙ্গুনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন বলে হাছান মাহমুদ জানান।তিনি বলেন, তার লোকজন হামলা চালিয়েছে বলে যে অভিযোগ বিএনপি নেতারা করেছেন, তা সঠিক নয়।ওই এলাকার সব মানুষ আমার ভোটার। স্থানীয়রা ক্ষুব্ধ হয়ে এই ঘটনা ঘটিয়েছে, এতে আওয়ামী লীগের কেউ জড়িত না।ঘটনার পর পুলিশি নিরাপত্তায় বিএনপি প্রতিনিধি দলকে রাঙামাটি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলা হলেও তারা সেখানে যাননি দাবি করে হাছান মাহমুদ বলেন, তারা চট্টগ্রামে ফিরে এসে সংবাদ সম্মেলন করছেন, এটা রহস্যজনক। মির্জা ফখররুল বলেন, প্রায় ২০ থেকে ২৫ জন লোক অতর্কিতে তাঁর গাড়িবহরে লাঠিসোঁটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করে।বিএনপির মহাসচিব বলেন, আমার গাড়ির কাচ ভেঙে গেছে। বহরের অন্য গাড়িও তছনছ করা হয়েছে। গাড়ির ভাঙা কাচ আমার শরীরে লেগেছে। আমাদের কয়েকজন নেতা আহত হয়েছেন।আমির খসরু বলেন, মির্জা ফখরুল হাতে আঘাত পেয়েছেন। রুহুল আমিন ঘাড়ে ব্যথা পেয়েছেন। মাহবুবুরের আঘাত মাথায়। তাঁর (আমির খসরু) হাত দিয়েও রক্ত বেরিয়েছে।রাঙ্গুনিয়া উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যাপক মো. মহসিন বলেন, মির্জা ফখরুলের বহরে ৫ টির মতো গাড়ি ছিল। ৪টিই ভাঙচুর করা হয়েছে। হামলায় অন্তত আটজন আহত হয়েছেন। ছাত্রলীগ-যুবলীগ এই হামলা চালিয়েছে।আমির খসরু অভিযোগ করে বলেন, এলাকাটি আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদের। তাঁর লোকজনই এই হামলা করেছেন।অভিযোগের বিষয়ে হাছান মাহমুদ বলেন,‘ঘটনাটি শুনেছি। বিএনপি নেতাদের গাড়িবহর দুজন পথচারীকে ধাক্কা দেয়। এরপর সেখানে উত্তেজিত লোকজন কিছু একটা করেছে।হাছান মাহমুদ বলেন, পাহাড়ধস হলো, এক সপ্তাহ আগে। আর বিএনপি নেতারা এখন সেখানে যাচ্ছিলেন। তাও আবার হামলার অজুহাত তুলে রাঙামাটি না গিয়ে ফিরে এসেছেন। এটা রহস্যজনক।বিষয়টিকে নাটক মনে হচ্ছে।মির্জা ফখরুলের গাড়িবহরে হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। দুপুর পৌনে একটার দিকে কুমিল্লাায় এক সংবাদ সম্মেলনে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন রিজভী। নগরের কান্দিরপাড়ে অবস্থিত কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়।রিজভী বলেন, হামলার প্রতিবাদে কাল সোমবার দেশের সব জেলা সদর, মহানগর ও রাজধানীর থানায় থানায় বিক্ষোভ মিছিল করা হবে।রিজভী অভিযোগ করে বলেন, আওয়ামী লীগ পরিকল্পিতভাবে এই হামলা চালিয়েছে। রাঙ্গুনিয়ার হামলা গণতন্ত্রের ওপর হামলা। এদিকে, দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে পৌঁছে এক সংবাদ সম্মেলনে ফখরুল বলেন, এ আঘাত গণতন্ত্রের প্রতি আঘাত। যারা মুক্ত চিন্তার কথা বলে,এ সরকারের খারাপ কাজগুলোর বিরোধিতা করে এবং গণতন্ত্রের পক্ষে সোচ্চার- তাদের প্রতি এ আঘাত।পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত রাঙামাটি যাওয়ার পথে বিএনপি নেতাদের গাড়ি বহরে হামলার ঘটনাকে গণতন্ত্রের প্রতি আঘাত’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলগমীর।রোবাবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ইছাখালী এলাকায় ওই হামলার পর রাঙামাটি যেতে না পেরে চট্টগ্রামে ফিরে আসে মির্জা ফখরুলের নেতৃত্বে সাত সদস্যের প্রতিনিধি দলটি।যারা জাতীয়তাবাদী রাজনীতিতে বিশ্বাস করেন- এ আঘাত তাদের প্রতি।রাঙামাটির দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে বিএনপি প্রতিনিধি দলের সদস্যরা সকালে চট্টগ্রাম থেকে সড়ক পথে কাপ্তাইয়ের পথে রওনা হন। সেখান থেকে নৌপথে তাদের রাঙামাটি যাওয়ার কথা ছিল।কিন্তু ইছাখালী এলাকায় একদল লোক রড ও দা নিয়ে ওই গাড়ি বহরে হামলা চালায় এবং ভাংচুর করে বলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী জানান। তিনি স্থানীয় সাংসদ আওয়ামী লীগ নেতা হাছান মাহমুদের লোকজনকে এই হামলার জন্য দায়ী করেছেন। অন্যদিকে হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি নেতাদের গাড়ির ধাক্কায় দুইজন আহত হওয়ার পর স্থানীয় বাসিন্দারা ক্ষুব্ধ হয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে।চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগের চরিত্র আবার উদঘাটিত হয়েছে। সবসময় মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে এলেও তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। ভিন্নমতেও তারা বিশ্বাস করে না। সহনশীলতা বলতে তাদের মধ্যে কিছু নেই।আমরা তো সেখানে কোনো জনসভা করতে যাইনি। আমাদের পার্টির মিটিংও করতে যাইনি। যারা নিহত হয়েছেন সেসব পরিবারের প্রতি সহমর্তিতা জানাতে যাচ্ছিলাম।এই হামলা অবিশ্বাস্য মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমাদের অবস্থা যদি এই হয়, সাধারণ মানুষের অবস্থা কী? আমি মনে করি, এ আক্রমণ গণতন্ত্রের উপর আক্রমণ।সুস্থ চিন্তার মানুষের প্রতি আক্রমণ।জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে এই ফ্যাসিস্ট সরকারকে পরাজিত করতে পারলেই এর প্রতিবাদ হবে বলে মন্তব্য করেন ফখরুল।
প্রতিবেদক/জিএম/ফোকাস বাংলা/১৪০৮ ঘ.

নাটোরে যুবলীগ কর্মীদের গণপিটুনীতে এক গ্রামের ২০জন আহত
ওষুধের অনিয়ম প্রতিরোধে কঠোর আইন করা হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
সারাদেশে সড়কে প্রাণ গেল ৮ জনের